Sunday , 17 February 2019

নড়িয়ায় ডাকাতি মামলায় মেয়রের ভাই সহ ২ জন আটক

শরীয়তপুর২৪ রিপোর্ট ॥ শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার লোনসিং গ্রামে সিদ্দিকুল আমীন ( লাভলু চৌকিদার) নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে গত ২৩ মে (বুধবার) রাতে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। পুলিশ ওই ঘটনায় যুক্ত থাকার অভিযোগে স্থানীয় সাখাওয়াত দেওয়ান ও পৌর মেয়রের ভাই রাসেল রাঢ়ি নামে দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে। এ ঘটনায় শনিবার দুপুরে জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়।
আটক দুই ব্যক্তি ডাকাতির ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। তাদের দেয়া স্বীকোরক্তি অনুযায়ী লুন্ঠিত মালের কিছু অংশ উদ্ধার করা হয়েছে। এদের মধ্যে সাখাওয়াত দেওয়ান ডাকাতি সংঘটিত হওয়ার দিন বুধবার বিকালে মাদক মামলায় কারগার থেকে বের হয়ে রাতে ডাকাতির ঘটনায় অংশ নেন। গ্রেপ্তারকৃত সাখাওয়াত দেওয়ান নড়িয়া থানার দুইটি মাদক মামলার আসামী। আর রাসেল রাঢ়ি নড়িয়া পৌরসভার মেয়র শহীদুল ইসলাম বাবু রাঢ়ির ছোট ভাই।
নড়িয়া থানার অফিসার ইন চার্জ (ওসি) মো. আসলাম উদ্দিন বলেন, গত বুধবার দিবাগত রাতে লোনসিং গ্রামের সিদ্দিকুল আমিনের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনাটি ঘটেছে। ৫-৬ জনের ডাকাত দল ঘরের মানুষদের বেঁধে রেখে ৪৩ ভরি স্বর্নালংকার, ৯টি মোবইল সেট ও নগদ এক লক্ষ ২০ হাজার টাকা নিয়ে যায়। পুলিশ সন্দেহ ভাজন হিসেবে সাখাওয়াত দেওয়ান ও রাসেল রাঢ়ি নামে দুই ব্যক্তিকে আটক করে। জিজ্ঞাসবাদে তারা পুলিশকে জানায় সাখাওয়াত কারাগারে থাকতেই ডাকাতির পরিকল্পনা করে। সে অনুযায়ী রাসেল ও অন্যদের সাথে যোগাযোগ করেন। বুধবার কারাগার থেকে বের হয়েই রাতে ডাকাতির ঘটনা ঘটায়। সে নড়িয়া থানার একটি মাদক মামলায় কারগারে ছিলেন। সে মাদক বিক্রেতা ছিল।
সাখাওয়াত দেওয়ান ও রাসেল রাঢ়িকে শুক্রবার পুলিশ গ্রেপ্তার করেন। তাদের দেয়া স্বীকারোক্তি অনুযায়ী একটি স্বর্নের আংটি, একটি চেইন ও ১২ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার তাদের নিয়ে পুলিশ সুপার আব্দুল মোমেন সংবাদ সম্মেলন করেন। পরে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
পুলিশ সুপার আব্দুল মোমন বলেন,কারাগার থেকে বের হয়েই ডাকাতির ঘটনাটি ঘটিয়েছে। আমরা কিছু মালামাল উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছি। বাকি মালামালও উদ্ধার করা হবে। ডাকাতির ঘটনায় আরো যারা জড়িত তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।
প্রেস ব্রিফিং এ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) মো. আল মামুন সিকদার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নড়িয়া সার্কেল) আব্দুল হান্নান, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) তানভীর হায়দার শাওন, নড়িয়া থানার ওসি মো. আসলাম উদ্দিন, ডিআইও-২ মো. আজহারুল ইসলাম, নড়িয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবু বকর প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।
এ বিষয়ে নড়িয়া পৌরসভার মেয়র শহিদুল ইসলাম বাবু রাড়ী বলেন, ডাকাতির ঘটনায় আমার ভাই কেন, যেই জড়িত থাকুক তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হোক।
শরীয়তপুর২৪/নড়িয়া/অপরাধ/২৬ মে, ২০১৮ খ্রি:


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*