Sunday , 17 February 2019

নড়িয়ার সাধুরবাজারে পদ্মায় নিখোঁজ ৮ জনের খোঁজ মেলেনি এখনও

এসএম রাকিব ॥ শরীয়তপুরের নড়িয়ায় সাধুরবাজার লঞ্চঘাট এলাকায় মঙ্গলবার নদী ভাঙ্গনের ঘটনায় নিখোঁজ ব্যক্তিদের ৮ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তবে এখন পর্যন্ত কারো খোঁজ পাওয়া যায়নি। এদিকে নিখোঁজ ব্যক্তিদের সন্ধ্যানে নদীর পাড়ে আসা স্বজনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠেছে পদ্মা পাড়ের বাতাস।
নড়িয়া উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নিখোঁজ ব্যক্তিদের সন্ধানে সকাল থেকে ঘটনাস্থলের আশেপাশে তল্লাশি চালাচ্ছেন ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। এখন পর্যন্ত নিখোঁজ ৮ ব্যক্তির পরিচয় পাওয়া গেছে। এরা হচ্ছেন নড়িয়ার উত্তর কেদারপুর গ্রামের শাহজাহান বেপারি (৭০), মজিবুর ছৈয়াল (৪৫), গুপী বাছার (৫৫), আব্দুর রশিদ হাওলাদার, মোশারফ চোকদার, কলুকাঠি গ্রামের নাছির বয়াতী (১৮), চাকধ গ্রামের নাছির হাওলাদার (৩৫), এবং বরিশালের নাজিরপুর গ্রামের মনিরুল ইসলামের ছেলে আল আমিন (২৭)।
বুধবার দুপুর ১১ টার দিকে ক্ষতিগ্রস্থদের খোঁজখবর নিতে দুর্ঘটনাস্থল যান জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহের। তিনি নিখোঁজদের স্বজনদের সাথে কথা বলেন এবং খোঁজ না পাওয়া পর্যন্ত উদ্ধার কার্যক্রম চালু রাখার আশ্বাস দেন। এছাড়া যুদ্ধাপরাধী ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর এ্যাডভোকেট সুলতান মাহমুদ সীমন ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করেন।
এদিকে সকাল থেকেই নিখোঁজদের সন্ধানে নদীর পাড়ে ভিড় জমাতে থাকেন স্বজনেরা। তাদের কান্না আর আহাজারি দেখে নীরবে চোখের পানি ফেলেন সাধারণ মানুষ।
নিখোঁজ মজিবুর ছৈয়ালের স্ত্রী রাবেয়া বেগম জানান, তার স্বামী গাছ কেনাবেচার ব্যবসা করতো। ভাঙ্গন এলাকার গাছ কেনার জন্য সে গতকাল দুপুরে সাধুরবাজার এসেছিল। কিন্তু লঞ্চঘাট এলাকা ধ্বসে পড়ার পর থেকে তার আর কোনো খোঁজ নেই।
নিখোঁজ নাছির বয়াতীর মা নাজমা বেগম ছেলের শোকে শুধুই বিলাপ করছিলেন। তিনি বলেন, ছেলেটা কাঠ মিস্ত্রীর কাজ করতো। পেটের দায়ে নদীর পাড়ের ঘর ভাঙ্গার কাজ করতে এসেছিল। কাল দুপুর থেকে কোনো খোঁজ নেই।
নড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা ইয়াসমিন বলেন, এখন পর্যন্ত নিখোঁজ ৮ জনের নাম পরিচয় পাওয়া গেছে। নিখোঁজদের খোঁজে উদ্ধার তৎপরতা চলমান আছে। ভাঙ্গন এলাকা থেকে লোকজনকে দ্রুত নিরাপদ দূরত্বে সরে যেতে বলা হয়েছে।
উল্লেখ্য, মঙ্গলবার দুপুরে হঠাৎ করেই সাধুরবাজার লঞ্চঘাট এলাকার একটি অংশ ৩৫ থেকে ৪০ জন মানুষ সহ ধ্বসে পড়ে। এ সময় কিছু লোক সাঁতরে পাড়ে ওঠেন এবং ১৪ জনকে উদ্ধার করা হলেও অনেক লোক নিখোঁজ রয়েছেন। নিখোঁজদের সঠিক সংখ্যা জানা না গেলেও এখন পর্যন্ত ৮ জনের নাম পরিচয় পাওয়া যায়।
শরীয়তপুর২৪/নড়িয়া/দূর্ঘটনা/এমএইচ/০৮ আগষ্ট, ২০১৮ খ্রি:


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*